No icon

আজ সকাল থেকে দিনাজপুরে ৭ দিনের লোকডাউন শুরু হয়েছে

যোদ্ধা ডেস্কঃ করোনা-১৯ সংক্রমন বেড়ে যাওয়ায় সীমান্তবর্তী জেলা দিনাজপুর সদরে আজ মঙ্গলবার সকাল থেকে ৭ দিনের জন্য লোকডাউনের শুরু হয়েছে। জেলা প্রশাসক খালেদ মোহাম্মদ জাকি স্বাক্ষরিত ১৩ দফা শর্ত উল্লেখ করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। লোক ডাউনে সকল প্রকার দোকান হোটেল রেষ্টুরেন্ট পূরোপূরী বন্ধ থাকবে দিনাজপুর সদর থেকে সকল গণ পরিবহন যাতায়াত বন্ধ থাকবে। কেবলমাত্র জরুরী পরিসেবা চালু থাকবে। কাঁচাবাজার, মুদিদোকান ও ঔষধের দোকানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চালু রাখা যাবে। লোকডাউনের প্রথম দিন সকাল থেকেই পুলিশ শহরের ঢোকার মুখগুলিতে অবস্থান নেয়। সকালে কাঞ্চন ব্রীজ এলাকায় শহরের প্রবেশমুখে মানুষ, মোটর সাইকেল ও ইজি বাইকের ঢল নামতে দেখা গেছে। পুলিশ আটকানোর চেষ্টা করেও অনেক ক্ষেত্রে বিফল হচ্ছে। চিকিৎসাসহ বিভিন্ন অজুহাত দাঁড় করাতে দেখা গেছে। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ব্যস্ততম এলাকা লিলিমোড়ে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, এ এস পি সার্কেলসহ র‌্যাব কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে চেক পোষ্ট বসানো হয়। কোন কারন ছাড়া ঘরের বাইরে আসা মোটর সাইকেল, ইজি বাইক আটক করে ফিরিয়ে দেয়া ছাড়াও জরিমানা করা হচ্ছে।
তবে গণ পরিবহন বন্ধ থাকলেও ইজি বাইক পরিবহন বন্ধ করা অসম্ভব হয়ে উঠেছে বলে একজন কর্মকর্তা জানান। তিনি বলেন কোন না কোন কারন দেখিয়ে গাদাগাদি করে যাত্রী পরিবহন লোড ডাউনের উদ্দেশ্যকে ব্যাহত করছে। মোটর সাইকেলে ১ জনের অধিক আরোহী নিষিদ্ধ হলেও ২ থেকে ৩ আরোহী নিয়েও মোটর সাইকেল চলাচল করতে দেখা গেছে।
এদিকে গত ২৪ ঘন্টায় দিনাজপুরে মুত্যু না থাকলেও নুতনভাবে ২৬ জনের করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তহারে ৩২.৫ শতাংশ। সিভিল সার্জন সুত্র মতে এ সময়ে মোট ৩০৮টি নমুনা সংগ্রহ করা হলেও মাত্র ৮০টি নমুনা পরীক্ষা করা সম্ভব হয়েছে। অপরদিকে সিভিল সার্জন ডাঃ আবদুল কুদ্দুস জানান, গত এপ্রিল থেকেই দিনাজপুরে সংক্রমন বাড়তে থাকে। ফেব্রুয়ারীতে ২ এবং মার্চে ৬ শতাংশ সংক্রমন ছিল। এপ্রিলে এসে তা ১৬, মে-তে ২২ এবং জুনের প্রথম সপ্তাহে ৩৮ শতাংশে পৌছায়। তার মতে গত বছর জুলাই আগষ্টে সর্বোচ্চ সংক্রমন দেখা দিয়েছিল। এবার সামনে পবিত্র ঈদুল আযহা’য় গরু’র হাটসহ মানুষজনের সমাগম এবং যাতায়াত বৃদ্ধি পাবে। তাই সাবধান না হলে এবার এই মাত্রা নিয়ন্ত্রনের বাহিরে চলে যাওয়ার সম্ভাবনাকে উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না। তবে সরকারীভাবে জনগনের মধ্যে সচেতনা সৃষ্টির চেষ্টা করা হচ্ছে। জনগন সচেতন না হলে লোক ডাউন ও কঠোর বিধি নিষেধ দিয়ে আশানুরুপ ত্বরিৎ সুফল পাওয়া অসম্ভব বলে তিনি মত প্রকাশ করেন।

Comment