দেশ

শেখ হাসিনা ডাল-ভাত খাবেন মাথানত করবেন না

যোদ্ধা ডেস্কঃ আমেরিকার ভিসানীতির সমালোচনা করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নিষেধাজ্ঞা দিবে দাও, ভিসানীতি দিবে দাও। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিসানীতি ও কারো রক্ত চক্ষুকে ভয় করেন না। প্রয়োজনে ডাল ভাত খাবেন কিন্তু কারো কাছে মাথা নত করবেন না। বিএনপি সাম্প্রদায়িক শক্তির বিশ্বস্ত ঠিকানা। বিএনপি আন্দোলনে হেরে গেছে, যে দল আন্দোলনে হারে তারা নির্বাচনেও হেরে যায়। যারা আন্দোলনে ব্যর্থ তারা নির্বাচনেও ব্যর্থ, জিততে পারে না।

গতকাল শনিবার নিজ নির্বাচনি এলাকা নোয়াখালীর কবিরহাট সরকারি কলেজ প্রাঙ্গণে উপজেলা আওয়ামী লীগের উন্নয়ন, শান্তি ও সুধী সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।

বিএনপির মহাসচিবকে উদ্দেশ্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, মির্জা ফখরুল নোয়াখালীতে এসে বিষোদগার করেছেন, সাঙ্গোপাঙ্গদের দিয়ে হুমকি-ধমকি দিয়ে গেছেন। ফখরুল মনে হয় জানেন না যে নোয়াখালী এক সময় বিএনপির ঘাঁটি ছিল। কিন্তু এখন আর বিএনপির ঘাঁটি নেই। বর্তমানে আওয়ামী লীগের ঘাঁটি, শেখ হাসিনার ঘাঁটি। প্রস্তুত থাকবেন যে হাত আগুন নিয়ে পোড়াতে আসবে সে হাত আগুনে পুড়ে যাবে, সেই হাত পুড়িয়ে দিতে হবে। যে হাত ভাঙচুর করতে আসবে, সেই হাত ভেঙে দেওয়া হবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ হাসিনা অত্যন্ত সাহসী। তার সাহস, কর্মদক্ষ ও দেশ পরিচালনার প্রশংসায় বিশ্বের নেতারা। তার মতো সফল ও দক্ষ রাষ্ট্রনায়ক কম আছে। আওয়ামী লীগ অনেক শক্তিশালী। ৭৬ বছর বয়সে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের অতন্দ্র প্রহরী হিসেবে কাজ করছেন। তিনি ২৪ ঘণ্টায় ৪-৫ ঘণ্টার বেশি ঘুমান না। সততা, দেশপ্রেম ও জনগণের ভালবাসা নিয়ে এবং কর্মদক্ষতার মাধ্যমে বিশ্বের প্রথম সারির কয়েকজন ক্ষমতাধর নেতাদের মধ্যে শেখ হাসিনা অন্যতম।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনা আজ ঢাকাসহ সারা দেশকে আধুনিক শহরে রূপান্তরিত করেছেন। দেশে অনেক লোকের চাকরি হয়েছে। চাকরি একটা চলমান প্রক্রিয়া। মেট্রোরেলের মাধ্যমেও অনেক লোকের চাকরি হয়েছে। দলের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ এই নেতা বলেন, বিএনপি আন্দোলনে ব্যর্থ। যারা আন্দোলনে ব্যর্থ, তারা নির্বাচনেও ব্যর্থ। ফখরুল হয়তো জানেন না, এক সময়ে নোয়াখালী বিএনপির ঘাঁটি ছিল, যা বর্তমানে আওয়ামী লীগের ঘাঁটিতে পরিণত হয়েছে। যারা আগুন নিয়ে সন্ত্রাস করতে আসবে, তাদের হাত আগুনে পুড়িয়ে ও ভেঙে দিতে হবে।

সেতুমন্ত্রী বলেন, কবিরহাটবাসীর ভোটে আমি বার বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছি। তাই এখানকার জনগণের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। এখানকার স্কুল-কলেজ-মসজিদ-মাদরাসা ও বিদ্যুৎসহ ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। আমার নির্বাচনী সব ওয়াদা আমি পূরণ করব। সাম্প্রদায়িকতা আজ বড় চ্যালেঞ্জ উল্লেখ করে তিনি বলেন, সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গিবাদের আস্থার ঠিকানা বিএনপি। গত ৪ বছরে বিএনপি কোনো আন্দোলন গড়ে তুলতে পারেনি। আন্দোলন, সংগ্রাম আর রক্ত ঝরিয়ে আওয়ামী লীগের গতি থামাতে পারবে না।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি গত সাড়ে ১৪বছর আন্দোলন করে সফল হতে পারেনি, আগামী ৪ মাসে ও সফল হবে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মূল শক্তি এদেশের জনগণ। আওয়ামী লীগ মাটি ও মানুষের দল। রক্ত ঝরিয়ে বা আন্দোল করে আওয়ামী লীগকে দাবিয়ে রাখতে পারবে না। তিনি বলেন, শেখ হাসিনা এখন এদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতা। গত ৪৮ বছরে এমন সৎ, সাহসি ও দক্ষ নেতা এদেশে জন্মায় নাই। তিনি ৩ ঘন্টা ঘুমান বাকী সময় দেশের জন্য কাজ করেন। সততার দিক দিয়ে বিশ্বের প্রথম সারির কয়েক জন নেতার মধ্যে তিনিও একজন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আজ দারিদ্র নিরসনের জন্য বাংলাদেশ অনুসরনীয়। শেখ হাসিনা যতক্ষন ক্ষমতায় আছেন ততক্ষন আল্লাহ ছাড়া কাউকে ভয় করেন না। এমনকি কারো কাছে মাথা নত করে না। এমন সাহসি উচ্চারন কোন নেতার মুখে কখনো শোনা যায়নি। সরকারের সকল উন্নয়ন জনগনের সামনে তুলে ধরে আবারো শেখ হাসিনাকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করার আহবান জানানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

কবিরহাট উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী মোহাম্মদ ইব্রাহিমের সভাপতিত্বে এবং কবিরহাট পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম রায়হানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে নোয়াখালী-১ আসনের সংসদ সদস্য এইচ এম ইব্রাহিম, ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক নিজাম উদ্দিন হাজারি এমপি প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। সমাবেশে জেলা, উপজেলা আওয়ামী লীগের, অঙ্গসংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা উপস্থিত ছিলেন। এর আগে জেলা পুলিশ লাইনে নবনির্মিত চেতনায় বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল’ উদ্বোধন করেন তিনি।

এমন আরো সংবাদ

এই সংবাদটিও পরতে পারেন
Close
Back to top button